ওমিক্রন এবং স্বাস্থ্যনীতির “পলিসি প্যারালিসিস”

জয়ন্ত ভট্টাচার্য

 



চিকিৎসক ও জনস্বাস্থ্য-কর্মী, প্রাবন্ধিক

 

 

 

বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার Technical Advisory Group on SARS-CoV-2 Virus Evolution (TAG-VE) গত ২৬ নভেম্বর সার্স-কোভ-২-এর যে নতুন প্রজাতি “ওমিক্রন” (গ্রিক অ্যালফাবেট অনুযায়ী নামকরণে ইংরেজির O) আফ্রিকায় উদ্বেগ বাড়িয়েছে তাকে VOC (Variant of Concern) বলে অভিহিত করেছে। আমরা, ভারতের পৃথিবীর সমস্ত সাধারণ মানুষ, ঘরপোড়া গরু। তাই সিঁদুরে মেঘে ডরাই। আমরা এখনও স্বাভাবিক জীবনের ছন্দে ফিরতে পারিনি। যতই “নিউ নর্ম্যাল”-এর মতো আদুরে নামে ডেকে একে স্বাভাবিক বানানোর চেষ্টা হোক না কেন, আমাদের এ জীবন পূর্ণত অ-স্বাভাবিক। এজন্য এই মারণান্তক ভাইরাসের (২০১৯-এর নভেম্বরের শেষ থেকে যার নমুনা মিলছিল চিনের য়ুহান প্রদেশে) দাপট ২ বছর পার করলেও নতুন নতুন চেহারায়, নব নব অবতার রূপে হাজির হচ্ছে এই ভাইরাস। আমরা চাপা আতঙ্কে বাস করছি – আবার কোনও প্রিয়জনকে হারাতে যেন না হয়।

নতুন চেহারার ভাইরাসের বৈজ্ঞানিকদের কাছে নতুন মিউটেশনের পরিচিতি B.1.1.529 variant বলে, সাধারণভাবে যা ওমিক্রন নামে অভিহিত হচ্ছে। ২০২১-এর ৩১ মে থেকে WHO সার্স-কোভ-২-এর বিভিন্ন ভ্যারিয়েন্টের নামকরণ গ্রিক বর্ণমালা অনুযায়ী করা শুরু করে। এখন অব্দি আলফা, বিটা, গামা, ডেল্টা এবং ওমিক্রন নাম দেওয়া হয়েছে। দক্ষিণ আফ্রিকায় ওমিক্রন প্রথম শনাক্ত হয় ২৪ নভেম্বর, ২০২১ তারিখে। যদিও তার আগে ৯ নভেম্বর, ২০২১-এ এক আক্রান্তের শরীর থেকে এই ভাইরাসের নমুনা মিলেছিল।

WHO ২৬ নভেম্বর, ২০২১-এ পৃথিবীর সমস্ত দেশের নিম্নোক্ত নির্দেশিকা পাঠিয়েছে। তার ২ নম্বর নির্দেশিকাটি (submit complete genome sequences and associated metadata to a publicly available database, such as GISAID.) গুরুত্বপূর্ণ।

আমাদের মতো যেসব দেশে জেনোমিক স্টাডি এবং sero-surveillance-এর ব্যবস্থা দুর্বল জায়গায় রয়েছে, যেসব জায়গায় পাবলিক হেলথ সিস্টেম ভঙ্গুর বা দুর্বল এবং প্রাথমিক স্বাস্থ্যব্যবস্থা বেহাল সেসব দেশে “associated metadata” বিশ্বাসযোগ্যভাবে সংগৃহীত হবে কিভাবে সেটা বাস্তবিকই চিন্তার বিষয়। এবং জোর দিয়ে বলতে হবে, গুরুত্ব আরোপ করে ভাবতে হবে যে এগুলো সবই জনস্বাস্থ্যের পরিকল্পনার অন্তর্গত।

নতুন ভ্যারিয়েন্টের চেহারা সার্স-কোভ-২-এর মতো একইরকম, পরিবর্তন শুধু জেনোমিক সিকোয়েন্সে। আমরা এতদিনে জেনে গেছি সার্স-কোভ-২ ভাইরাস একটি আরএনএ ভাইরাস এবং এতে ২৯,৯০৩টি অ্যামিনো অ্যাসিড থাকে। আরএনএ ভাইরাস হবার জন্য চরিত্রগতভাবে “erroro-prone”। ভাইরাসের যখন রেপ্লিকেশন হয়, অর্থাৎ একটি ভাইরাস থেকে আরও অনেক ভাইরাসের জন্ম যখন হচ্ছে তখন এর আরএনএ-র অ্যামিনো অ্যাসিডের সজ্জা পরিবর্তিত হয়ে যায়। একে বিজ্ঞানীরা বলেন মিউটেশন। মিউটেশন যত বেশি হবে ভাইরাসের চরিত্রেরও তত বদল হবে। এর মধ্যে কয়েকটি ভ্যারিয়েন্ট বিপজ্জনক হয়, কিছু বিশেষ ক্ষতি করতে পারে না। নীচে স্পাইক প্রোটিনের ছবি রইল।

এখানে আরেকটি ব্যাপার ভাইরাস সংক্রমণের ক্ষেত্রে বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ – একে বলা হয় R0 (রিপ্রোডাক্টিভ নাম্বার)। এই ভাইরাসের প্রথম যে জ্ঞাতি পাওয়া গিয়েছিল তার R0 কমবেশি ২-এর আশেপাশে। এর অর্থ হল একজন মানুষ ২ জনকে সংক্রমিত করতে পারবে। তারা আবার জ্যামিতিক হারে বৃদ্ধি পাবে।

এর আগে যে ডেল্টা-প্লাস ভ্যারিয়েন্ট নিয়ে আমরা আতঙ্কিত হয়েছিলাম তার R0 ৬ থেকে ৮-এর মধ্যে। তাহলে অনুমান করা যায়, কি বিপুল পরিমাণ মানুষ অল্পসময়ের মধ্যে আক্রান্ত হবে। ওমিক্রনের ক্ষেত্রে R0 এখনও নিশ্চিতভাবে বলা না গেলেও ধরে নেওয়া হচ্ছে এটা ডেল্টা-প্লাসের মতই হবে। সেক্ষেত্রে একদিকে ভাইরাসের transmissibility (ছড়িয়ে পড়ার ক্ষমতা বিপুল), অন্যদিকে infectivity (সংক্রমণের ক্ষমতা)-ও যথেষ্ট বেশি। নেচার জার্নালে ২৭ নভেম্বর, ২০২১-এ প্রকাশিত প্রতিবেদন জানাচ্ছে “Heavily mutated Omicron variant puts scientists on alert”। এ প্রতিবেদনে বলা হল – “Researchers spotted B.1.1.529 in genome-sequencing data from Botswana. The variant stood out because it contains more than 30 changes to the spike protein — the SARS-CoV-2 protein that recognizes host cells and is the main target of the body’s immune responses. Many of the changes have been found in variants such as Delta and Alpha, and are linked to heightened infectivity and the ability to evade infection-blocking antibodies.”

এখানে আরও বিপত্তি তৈরি হল। প্রথম, যে স্পাইক প্রোটিনকে টার্গেট করে ভ্যাক্সিন তৈরি হচ্ছে সে স্পাইক প্রোটিনের যদি ৩০টির বেশি পরিবর্তন ঘটে তাহলে ভ্যাক্সিন কোন স্পাইক প্রোটিনকে রিসেপ্টরের সাথে জোড় বাঁধাকে আটকাবে? এজন্য ফাইজার-বায়োএনটেক ইতিমধ্যেই জানিয়ে দিয়েছে যে এই ভ্যারিয়েন্টের বিরুদ্ধে এদের ভ্যাক্সিনের কার্যকারিতা নিয়ে এরা নিশিত নয়। সম্ভবত কাজ করবে না। মডার্না এবং অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার অবস্থান এই ভ্যারিয়েন্ট নিয়ে আরও গবেষণার পরে ফলাফল বলা যাবে।

সায়ান্স পত্রিকায় ২৭ নভেম্বর, ২০২১-এ প্রকাশিত “’Patience is crucial’: Why we won’t know for weeks how dangerous Omicron is” প্রতিবেদনে বলা হয়েছে – “A mutation called E484K has long been worrying because it changes the shape of the site that class 2 antibodies recognize, making them less potent. Omicron carries a mutation called E484A in this site and similar changes in the sites for the other two classes of antibodies.”

দুটি বিপত্তি লুকিয়ে রয়েছে এখানে – (১) মানুষের দেহ বহিরাগত ভাইরাস, ব্যাক্টেরিয়া, ফাংগাস বা অন্য যে কিছু দিয়ে আক্রান্ত হলে শরীরের নিজস্ব ইমিউন সিস্টেম একটি তাৎক্ষণিক প্রতিরোধ ব্যবস্থা গড়ে তোলে শরীরের রক্তে প্রবাহিত নিট্রালাইজিং অ্যান্টিবডির সাহায্যে। যদি ভাইরাসটি একটি প্রোটিনের চাদর তৈরি করে চোরের মতো এর হাত থেকে পালিয়ে যেতে পারে (evade) তাহলে প্রতিরোধ ব্যবস্থা আর কার্যকরী হবে না, এবং (২) যদি ইমিউন সিস্টেম ঠিকমতো উদ্দীপিত না হয় তাহলে মেমরি সেল কাজ করবে না। পরিণতিতে আমাদের ইমিউনিটি আমাদের দেহকে ভাইরাসমুক্ত করতে পারবেনা।

নেচার-এ ২৯ জুলাই, ২০২১-এ প্রকাশিত “How the coronavirus infects cells — and why Delta is so dangerous” প্রতিবেদনে এ বিষয়ে আরও বিশদ গবেষণায় জানানো হয়েছিল – “First, the virus eliminates the competition: viral protein Nsp1, one of the first proteins translated when the virus arrives, recruits host proteins to systematically chop up all cellular mRNAs that don’t have a viral tag…

Second, infection reduces overall protein translation in the cell by 70%. Nsp1 is again the main culprit, this time physically blocking the entry channel of ribosomes so mRNA can’t get inside, according to work from two research teams. The little translation capacity that remains is dedicated to viral RNAs…

Finally, the virus shuts down the cell’s alarm system. This happens in numerous ways, the virus prevents cellular mRNA from getting out of the nucleus, including instructions for proteins meant to alert the immune system to infection.” একথাগুলো হয়তো ওমিক্রনের ক্ষেত্রে অধিকতর সত্যি হতে পারে। আমরা চাইব সত্যি না হোক!

“ভ্যাক্সিন জাতীয়তাবাদ” এবং “ভ্যাক্সিন অসাম্য” ভাইরাসের নতুন নতুন স্ট্রেইন তৈরি হবার পেছনে একটি গুরুত্বপূর্ণ কারণ। ভ্যাক্সিন যত কম হবে তত বেশি সংক্রমণের সম্ভাবনা থাকবে। আবার যত বেশি সংক্রমণ হবে ভাইরাসের রেপ্লিকেশন তত বেশি হবে। রেপ্লিকেশন বেশি হওয়া মানেই মিউটেশনের সম্ভাবনা বেড়ে যাওয়া। WHO এবছরের সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যে পৃথিবীর সমস্ত দেশের ক্ষেত্রে অন্তত ১০% জনসংখ্যাকে ভ্যাক্সিন দেবার কথা বলেছিল। ৫০টির বেশি দেশ এই টার্গেট মিস করেছে। তার মধ্যে বেশিরভাগই আফ্রিকা মহাদেশে। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস সংবাদপত্রের (২৭ নভেম্বর, ২০২১) একটি খবর – “Omicron puts focus on low vaccine coverage in developing countries”। প্রায় ৬ মাস আগে সুবিখ্যাত নিউ ইয়র্কার সংবাদপত্রের একটি খবরের (৫.০৬.২১) শিরোনাম ছিল “The Peril of Not Vaccinating the World”। এখানে সতর্কবার্তা দেওয়া হয়েছে – “যদি ভ্যাক্সিন অনুপস্থিত থাকে তাহলে বিশ্বব্যাপী এক অতল সংকটের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে।”

নিউ ইংল্যান্ড জার্নাল অফ মেডিসিন তুল্য মান্য পত্রিকায় “From Vaccine Nationalism to Vaccine Equity – Finding a Path Forward” (এপ্রিল ৮, ২০২১) প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল – “বহুসংখ্যক দরিদ্রতম দেশে ভ্যাক্সিনের সরবরাহের কোন অস্তিত্বই নেই, এবং বিশেষজ্ঞরা অনুমান করছেন কম-সম্পদ সম্পন্ন ৮০% দেশে এ বছর (২০২১) একটিও ভ্যাক্সিন পাবেনা।” এ প্রবন্ধটিতেই বলা হয়েছিল – “Vaccinating the world is not only a moral obligation to protect our neighbors, it also serves our self-interest by protecting our security, health, and economy. These goals will not be accomplished by making the world wait for wealthy countries to be vaccinated first.” মূল কথা হল, সমগ্র বিশ্বের টিকাকরণ শুধুমাত্র একটি নৈতিক বাধ্যবাধকতা নয়, এ কাজটি আমাদের নিজেদের স্বার্থ সুরক্ষিত করবে – নিরাপত্তা, স্বাস্থ্য এবং অর্থনীতির ক্ষেত্রে। ধনী দেশগুলোতে প্রথম টিকাকরণ করার পরে বাকি বিশ্বের সিদ্ধিলাভ হবে এমন ভাবার কোনও কারণ নেই।

ল্যান্সেট-এর মতো বন্দিত জার্নালে প্রকাশিত হয়েছিল “The long road ahead for COVID-19 vaccination in Africa” (৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১)। এ প্রবন্ধ জানিয়েছিল, আফ্রিকার জনসংখ্যার মাত্র ২.৫%-এর টিকাকরণ হয়েছে। সামনে অনেক বড়ো রাস্তা – সে রাস্তায় রয়েছে ওমিক্রনের মতো ভ্যারিয়েন্ট। গত ২৬ অক্টোবর, ২০২১-এ হু এর বুলেটিনে জানিয়েছিল – “Less than 10% of African countries to hit key COVID-19 vaccination goal”।

আফ্রিকা মহাদেশের ৫৪টি দেশের মধ্যে মাত্র ৫টি দেশে ৪০% জনসংখ্যার টিকাকরণ হয়েছে। “ভ্যাক্সিন ইনইক্যুইটি”র জ্বলন্ত উদাহরণ আফ্রিকা। হু-র পূর্বোক্ত বুলেটিনে বলা হয়“Africa has fully vaccinated 77 million people, just 6% of its population. In comparison, over 70% of high-income countries have already vaccinated more than 40% of their people.

২০১৪ সালের ২০ ডিসেম্বর সদ্য ক্ষমতায় আসা বিজেপি সরকারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী রাজনাথ সিং লক্ষ্ণৌ-এর কিং জর্জেস মেডিক্যাল ইউনিভার্সিটির ১০ম কনভোকেশনে বলেছিলেন – “যদি আমাদের প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলোকে শক্তিশালী করে তুলতে পারি তাহলে এইমস, সঞ্জয় গান্ধী পোস্ট গ্র্যাজুয়েট ইন্সটিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়ন্সেস এবং কিং জর্জেস মেডিক্যাল ইউনিভার্সিটির মতো গুরুত্বপূর্ণ বৃহৎ প্রতিষ্ঠানগুলোর ক্ষেত্রে শতকরা ৮৫ ভাগ বোঝা কমিয়ে আনা যাবে।” সমধর্মী কথা আজ থেকে ৪০ বছর আগে ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা বলেছিলেন। ১৯৮১ সালে ওয়ার্ল্ড হেলথ কংগ্রেসের ৩৪তম অধিবেশন বসেছিল জেনেভাতে, ৪-২২ মে, ১৯৮১। সে সম্মেলনে ভারতের প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী। তিনি তাঁর বক্তব্যে বলেছিলেন, “আমাদের অবশ্যই অসামান্য আধুনিক হাসপাতাল প্রয়োজন।” এরপরের কথা ছিল, “স্বাস্থ্যকে মানুষের কাছে পৌঁছুতে হবে। কেন্দ্রাভিমুখী হবার বদলে প্রান্তাভিমুখী হবে স্বাস্থ্যব্যবস্থা।” আরও বললেন, ”স্বাস্থ্য কোনও পণ্য নয় যা পয়সা দিয়ে কেনা যায় কিংবা এটা কোনও ‘সার্ভিস’ নয় যা দেওয়া হবে। এটা জানার, বেঁচে থাকার, কাজে অংশগ্রহণ করার এবং আমাদের অস্তিত্বসম্পন্ন হবার চলমান একটি প্রক্রিয়া”। আরও বলেছিলেন, “আমাদের স্বাস্থ্যসেবা শুরু হবে সেখান থেকে যেখানে মানুষ রয়েছে, সেখান থেকে, যেখানে রোগের সমস্যার শুরু সেখান থেকে”। আধুনিক সময়ের পূর্ণত পণ্যায়িত ঝকমকে, চোখ-ধাঁধানো স্বাস্থ্য পরিষেবার (স্বাস্থ্য নয় কিন্তু, এই ভুল করবেন না) যুগে ৪০ বছর আগের এ উচ্চারণ এবং উপলব্ধি বৈপ্লবিক বলে মনে হওয়া অস্বাভাবিক নয়। গুরুত্বপূর্ণ কিছু অভিমত দিলেন ইন্দিরা গান্ধী – স্বাস্থ্য, প্রাথমিক স্বাস্থ্যব্যবস্থা, স্বাস্থ্যের পণ্য হয়ে ওঠা বা স্বাস্থ্যের অধিকার ইত্যাদি কিছু মৌলিক বিষয়ের স্বাভাবিক, সহজলভ্য সমাধানের পথে। আজ ৪০ বছর পরে একবার খোঁজ নিতে পারি স্বাস্থ্যের সরণিতে কোথায় দাঁড়িয়ে আছি আমরা।

প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলো কার্যত খণ্ডহরের মতো অবস্থা। দ্রুত কিছু তথ্য আমরা দেখে নিই। প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলোকে প্রায় প্রতিস্থাপিত করে ২০১৮-১৯ থেকে শুরু হয়েছে শ্রুতিমধুর “হেলথ অ্যান্ড ওয়েলনেস সেন্টারস”। এখানে প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রের “মতো” চিকিসা হবে বলে আমরা শুনেছি। ১,৫০,০০০ সেন্টারের জন্য বরাদ্দ টাকার পরিমাণ ১,২০০ কোটি টাকা। গড়ে প্রতিটি সেন্টার পাবে বছরে ৮০,০০০ টাকা। যদি সপ্তাহে সপ্তাহে ১০০ জন করে রোগীও দেখা হয় তাহলে সবচেয়ে কমসংখ্যক রোগী হতে পারে ২৫,০০০ জন। গড়ে রোগী পিছু বরাদ্দের পরিমাণ দাঁড়ায় ৩ টাকার মতো। এতে ওষুধ বা টেস্ট – কোনটার খরচ উঠবে? সেন্টার চালানোর খরচ বাদই দিলাম।

২০১৬ সালে সংসদীয় কমিটির প্যানেল রিপোর্ট অনুযায়ী, প্রতি ১০,১৮৯ জন মানুষের জন্য ১ জন সরকারি ডাক্তার, প্রতি ২,০৪৬ জনের জন্য সরকারি হাসপাতালে একটি বেড বরাদ্দ এবং প্রতি ৯০,৩৪৩ জনের জন্য একটি সরকারি হাসপাতাল – এই হচ্ছে সেসময় পর্যন্ত স্বাস্থ্যের চিত্র। ২০২০ সালের মার্চ মাসের একটি রিপোর্ট অনুযায়ী, ১৩৭ কোটি মানুষের জন্য সরকারি হাসপাতালে বেড রয়েছে ৭,১৩,৯৮৬টি। এর অর্থ দাঁড়ায়, প্রতি ১০০০ ভারবাসীর জন্য ০.৫টি করে বেড। বিহারে আবার এই সংখ্যা ১০০০-এ ০.১১, দিল্লিতে ১.০৫ – বৈষম্য সহজেই চোখে পড়ে।

এখানে আরেকটি তথ্য উল্লেখযোগ্য। এবারের স্বাস্থ্য বাজেট পেশ করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী নন, করেছেন অর্থমন্ত্রী। স্বাস্থ্যকে রাষ্ট্রের দায়িত্বের আওতা থেকে পূর্ণত বিদেয় দিয়ে মুক্ত বাজারের হাতে তুলে দেবার কোন ইঙ্গিত কি এর মাঝে প্রচ্ছন্ন আছে? Wire.in সংবাদপত্রের খবর ছিল (০১.০২.২১) “Despite Govt Claims, India’s Health Budget Only Around 0.34% of GDP”। এই সংবাদে বিশ্লেষণ করে দেখানো হয়েছে – “যেখানে এরকম সংকটকালীন মুহূর্তে স্বাস্থ্যখাতে ব্যয়বরাদ্দ বাড়ানোর একান্ত প্রয়োজন ছিল সেখানে সমস্ত হিসেবনিকেশ করে দেখা গেছে জিডিপির মাত্র ০.৩৪% স্বাস্থ্যখাতের জন্য বরাদ্দ আছে। গতবছর এই সংখ্যা ছিল ০.৩১%।“ যদিও মুদ্রাস্ফীতির হিসেব এর মধ্যে ধরা হয়নি। প্রতিবেদনের সিদ্ধান্ত – “if a globally debilitating pandemic could not prompt the government to prioritise health spending, it is difficult to imagine what will.” ফেব্রুয়ারি মাসের এরকম সতর্কবাণীর পরেও স্বাস্থ্যখাতে ব্যয়বরাদ্দ নিয়ে আলাদা করে কোনও চিন্তাভাবনা করা হয়নি। এর খেসারত সমগ্র ভারতবাসী দিচ্ছে – অগণিত চিতা জ্বলছে যমুনা এবং সবরমতি নদীর ধারে।

এখানে মনে রাখতে হবে, স্বাস্থ্য রাজ্যের তালিকাভুক্ত বিষয়, কেন্দ্রীয় সরকারের দায়িত্ব নয়। কেন্দ্রীয় সরকার স্বাস্থ্যের ক্ষেত্রে, এমনকি কোভিডের এই মারণান্তক সময়েও, প্রায় হাত ধুয়ে বসে আছে।

Center for Disease Dynamics, Economics and Policy (CDDP)-র (ভারতীয় স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা এবং প্রিন্সটন ইউনিভার্সিটির যৌথ উদ্যোগ) সমীক্ষা অনুযায়ী (২০২০), সরকারি হাসপাতালে বেডের সংখ্যা প্রায় ৭,০০,০০০। এই সমীক্ষায় জানানো হয়েছে, ভারতে প্রায় ১৯ লক্ষ হাসপাতাল বেড আছে (সরকারি-বেসরকারি মিলিয়ে), ৯৪,৯৬১টি আইসিইউ বেড আছে (এর মধ্যে সরকারি ক্ষেত্রে রয়েছে ৩৫,৬৯৯ এবং প্রাইভেট সেক্টরে ৫৯,২৬২), আছে ৪৮,০০০ ভেন্টিলেটর। ৭টি রাজ্যে ঘনীভূত হয়ে আছে এই বেড ও ভেন্টিলেটর – উত্তরপ্রদেশ (১৪.৮%), কর্ণাটক (১৩.৮%), মহারাষ্ট্র (১২.২%), তামিলনাড়ু (৮.১%), পশ্চিমবঙ্গ (৫.৯%), তেলেঙ্গানা (৫.২%) এবং কেরালা (৫.২%)। এখানে একটি চিত্র দিলে আন্তর্জাতিক মানে আমাদের দেশের ক্রিটিক্যাল কেয়ার বেডের সংখ্যার একটি প্রতিতুলনা পাওয়া যাবে।

২০২০ থেকে কোভিড অতিমারি শুরু হবার পরে এ সংখ্যা খানিকটা বেড়েছে আশা করা যায়। ২০২১ সালের সর্বশেষ তথ্য আমাদের হাতে নেই। নিউ ইয়র্ক টাইমস পত্রিকায় (১.০৫.২১) মন্তব্য করা হয়েছে – “Overconfidence and missteps contributed to the country’s devastating second wave, his critics say, tarnishing the prime minister’s aura of political invulnerability.” এর সাথে যুক্ত করতে হবে প্রবল আত্মতুষ্টির ফোলানো বেলুন। এ সমস্ত কিছুর সম্মিলিত যোগফলে কোভিডের তৃতীয় ঢেউ বেলাগাম হয়ে যাচ্ছে। রাষ্ট্র, ধর্ম এবং রাজনীতি একাকার হয়ে যায় তখন জনস্বাস্থ্য উচ্ছন্নে যেতে বাধ্য। আমাদের স্বাস্থ্যনীতি নির্ধারণের ক্ষেত্রে কি “পলিসি প্যারালিসিস” চলছে?

আরেকটি নজর করার মতো বিষয় হচ্ছে স্বাস্থ্যকে বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা বিভিন্ন সময়ে হিউম্যান রাইটস তথা মানবাধিকার বলে ঘোষণা করেছে। স্বাস্থ্য শুধু মানবাধিকার নয়, স্বাস্থ্য মানুষের মৌলিক অধিকার – শিক্ষার মতোই। কোনও রাজনৈতিক দলের অ্যাজেন্ডায় জনস্বাস্থ্য বা সার্বজনীনভাবে স্বাস্থ্যকে মৌলিক অধিকার হিসেবে দাবি তোলার প্রসঙ্গ নেই। আজ নাগরিক সমাজ তথা তৃতীয় পরিসর এত দ্রুত অপসৃয়মান যে তারা রাষ্ট্রের চোখে চোখ রেখে স্বাস্থ্য নিয়ে কথা বলতে পারে না। ফলে সরকারের বা রাষ্ট্রের তরফে পলিসি পঙ্গুত্বের দিকে আঙ্গুল তোলা শুধু নয়, আমাদের নিজেদেরকেও আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে নিজের মুখ দেখতে হবে। প্রশ্ন করতে হবে আমাদের “numbing of collective conscience” কিভাবে রাষ্ট্রকে সর্বশক্তিমান হয়ে উঠতে দিচ্ছে।

তাহলে আমাদের বর্তমান সংকটের আশু মোকাবিলায় করণীয় কী? দুবছরের গবেষণায় আমরা প্রায় নিশ্চিতভাবে জেনেছি যে এই ভাইরাস এরোসলের মাধ্যমে অর্থাৎ বায়ুবাহিত হয়ে মানুষের নাক, গলা হয়ে ফুসফুসে পৌঁছয়। এজন্য বাইরে বেরোলে নাক-মুখ ঢাকা মাস্ক পরতেই হবে। দ্বিতীয়, বাইরে বেরোলে ব্যক্তিগত দূরত্ব রক্ষা করার (৬ থেকে ৮ ফুট) চেষ্টা করতে হবে। তৃতীয়, হাতের পরিচ্ছনতা (২০ সেকেন্ড ধরে ফেনা ওঠা সাবান জলে হাত ধোয়া কিংবা ৭০% আইসোপ্রোপিল অ্যালকোহলযুক্ত স্যানিটাইজার দিয়ে হাত পরিষ্কার করা) রক্ষা করতে হবে। চতুর্থ, ঘরে যথেষ্ট আলোবাতাস খেলতে হবে। ঘর যেন বদ্ধ না থাকে। এবং, সর্বোপরি, বলার অপেক্ষা রাখে না অন্তত ৭০% (কোনও কোনও হিসেবে ৮৫%) জনসংখ্যার পূর্ণ টিকাকরণ।

এছাড়া আপাতত আর কোন প্রতিরোধের হাতিয়ার আমাদের হাতে নেই। আবার ফিরে যেতে হবে বুনিয়াদি পাবলিক হেলথের কাছে। একে রাষ্ট্রের তরফে সজীব ও সক্রিয় করতে হবে। আরও অনেক জেনোমিক স্টাডি এবং সেরো সার্ভেইলেন্স করা প্রয়োজন। আমরা এগুলো দায়িত্ব নিয়ে করব তো? শুধুমাত্র টিকার ওপরে ভরসা করে এই মারণাত্মক ভাইরাসের বিরুদ্ধে উপযুক্ত প্রতিরোধ গড়ে তোলা যাবে না।

এ কথাগুলো কি আমরা ভাবছি? না ভেবে, উটের মতো বালুতে মুখ গুঁজে এড়িয়ে যাওয়া যাবে কি?

 

About চার নম্বর প্ল্যাটফর্ম 4007 Articles
ইন্টারনেটের নতুন কাগজ

1 Comment

  1. অসাধারণ একটি তথ্যসমৃদ্ধ লেখা। অভিনন্দন ও শুভকামনা রইলো।???

1 Trackback / Pingback

  1. কোভিডবিধির গঙ্গাযাত্রা ও অন্যান্য প্রাসঙ্গিক প্রশ্ন – ৪ নম্বর প্ল্যাটফর্ম

আপনার মতামত...