“দ্য টেগোর ট্রায়েড” : ‘হেমন্তে কোন বসন্তেরই বাণী’

দ্য টেগোর ট্রায়েড

সোহিনী দাশগুপ্ত

 

“দ্য টেগোর ট্রায়েড” নামাঙ্কনে একটি প্রদর্শনী আকার প্রকার আর্ট গ্যালারীতে সম্প্রতি দেখা গেল। প্রদর্শনীর কিউরেটর দেবদত্ত গুপ্ত। ১০ই নভেম্বর প্রিভিউয়ের পর ১১ই নভেম্বর – ২৫শে নভেম্বর পর্যন্ত চলেছিল এই প্রদর্শনী। এই উপলক্ষে ১৫ই নভেম্বর রাজা ফাউনডেশন এর সহযোগিতায় এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছিল। বক্তা ছিলেন কলাভবন এর শিল্পকলা ইতিহাসের অধ্যাপক আর. শিব কুমার, কলাভবন এর মিউজিয়াম কিউরেটর সুশোভন অধিকারী এবং বর্তমান প্রদর্শনীর কিউরেটর দেবদত্ত গুপ্ত। তাঁরা ঠাকুর বাড়ির শিল্পচর্চার নানাদিক এবং সমকালীন সময়ে দাঁড়িয়ে বর্তমান প্রদর্শনীটির প্রাসঙ্গিকতা ও গুরুত্ব নিয়ে বিশ্লেষণাত্বক ও মনোজ্ঞ আলোচনা করেন। দুপুলিয়া অর্থাৎ জোড়াসাঁকো ঠাকুর বাড়ির তিন ঠাকুর- গগনেন্দ্রনাথ, অবনীন্দ্রনাথ ও রবীন্দ্রনাথের শিল্পচর্চার ব্যাপ্তির সাথে ভারতের চিত্রকলা ও দৃশ্য চর্চার আধুনিকতায় তাঁদের যে অবদান সেটি স্পষ্ট এই প্রদর্শনীতে। প্রদর্শনীতে বোঝা যায় যে ঠাকুর বাড়ির জীবন ও শিল্পকলার ছিল পারস্পরিক সহাবস্থান।

এই প্রদর্শনীতে দেখা যায় অবনীন্দ্রনাথের ছবি আঁকা শিক্ষার প্রথম কালের কিছু স্কেচ, যখন তিনি সদ্য ছবি আঁকা শিখছেন গিলার্দি আর পামারের কাছে। সেখানে আমাদের দেখার সুযোগ হয় একজন দেশ বরেন্য শিল্পীর যাত্রাপথের সূচনার চেহারাটা। তাঁর ১৬ বছর বয়সে করা “অগ্নি উপাসক”-এর ছবিগুলিও সেই সূচনা কালেরই পরিচয় বহন করে। লালা রুখের ফায়ার ওয়ারশিপার কবিতাটি পড়ে নিজেই সেটিকে অনুবাদ করেন ও সেই খাতাতেই করে রাখেন ছোট্ট ছোট্ট কিছু ইলাস্ট্রেশন। সময়ের সাথে সাথে তাঁর শিল্পচর্চার প্রসার ঘটলো। দেখা গেলো উর্দু হরফের প্রতি তাঁর আকৃষ্ট হওয়ার স্বরূপ। উর্দু হরফের যে চলন, তাকে মেনেই বাংলায় লিখেছেন ‘রাগ ধ্যানেশ্রী’, ‘রাগ জয়জয়ন্তী’, ‘কল্যাণী’ ইত্যাদি।

রাগিনী চিত্রমালা, অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুরের দ্বারা অঙ্কিত

তারই ৫টি পূঁথি দেখতে পাই এই প্রদর্শনীতে। ঠিক তারপরই তিনি তৈরি করেছিলেন বিখ্যাত ‘কৃষ্ণলীলা সিরিজ’, যেখানে আমরা দেখি ছবির ঠিক উপরের দিকে কিছু উর্দু অক্ষরমালার মতো বাংলা স্ক্রিপ্ট। এই ধারা অবন ঠাকুর শিখলেন কীভাবে? প্রশ্ন করায় কিউরেটর জানালেন – ‘অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুর সেই সময় চিৎপুরে গিয়ে গিয়ে উর্দু লেখা পুঁথি দেখতেন আর যাঁরা উর্দু স্ক্রিপ্ট কাঠের উপর কাটতেন তাঁদের কাজ দেখে নিজে নিজেই এই শৈলীর প্রতি আকৃষ্ট হন। তাছাড়া তাঁর চিত্র চর্চার প্রথম পর্বে একজন তাঁকে একটি মুঘল অ্যালবাম উপহার দিয়েছিলেন সেখান থেকেও তিনি এই হরফের সন্ধান পান। আর আর্ট কলেজে শিক্ষক হিসেবে আসার পর তাঁকে মুঘল চিত্রকলার উপর বিশেষ দৃষ্টি দিতে শেখান হ্যাভেল সাহেব।

অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুরের দ্বারা অঙ্কিত তাঁর মায়ের ছবি।

একই সাথে আমরা যখন জাপানি ওয়াশ ধারায় করা তাঁর মায়ের ছবির পাশাপাশি অ্যাকাডেমিক শিক্ষার প্রথা মেনে যমুনা সেনের প্রতিকৃতি দেখি তখন বুঝতে পারি ১৯২৬ সালেও কীভাবে তিনি দু’টি ধারার কাজকেই বজায় রেখেছিলেন।

যমুনা সেন এর প্রতিকৃতি, অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুরের দ্বারা অঙ্কিত

প্রসঙ্গত বলে রাখি যমুনা সেন হলেন নন্দলাল বসুর কন্যা। অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ছবির সাথে গ্যালারীতে পাশাপাশি রাখা হয়েছে তাঁর কিছু ছেলে ভুলানো ছড়ার ম্যানস্‌স্ক্রিপ্ট ও চিত্রাক্ষর। এই চিত্রাক্ষর হল তাঁর নিজের ছাপা একটি বই যেখানে প্রতিটি বাংলা বর্ণমালার সাথে অন্য অনেক কিছুর চেহারাগত সাযুজ্য খুঁজেছেন অবনীন্দ্রনাথ। বইটি বানিয়েছিলেন ছোট ছোট ছেলে মেয়েদের জন্য। এরকম অজস্র শিল্প উপাদানের মধ্যে দিয়ে অবনীন্দ্রনাথের জীবনের সাথে শিল্পকলা চর্চার যোগ ও ভিস্যুয়াল কালচার এর যে যোগাযোগ তার একটা ছবি ধরা পড়ে এখানে।

ভিস্যুয়াল আর কালচার -এই দু’টি শব্দ জড়িয়ে রেখেছিল গগনেন্দ্রনাথকেও, এই প্রদর্শনী তারও সাক্ষ্য দেয়। তাঁর কাজে ভাবাবেগের প্রতিফলনও ধরা পড়ে। কোথাও তিনি বিস্ফোরক হয়ে ওঠেন তার বিরূপ বজ্র, অদ্ভুত লোক আর নব হুল্লোড় নামক বইতে ব্যঙ্গচিত্রের মাধ্যমে। আবার কোথাও তিনি বেদনার রসে সিক্ত হয়ে ছবি আঁকছেন আপন খেয়ালে। ব্যঙ্গচিত্রে হয়ে উঠছেন কঠোর সমালোচক। তাঁর এই ব্যঙ্গচিত্রের তিনটি বই প্রদর্শিত করা হয়েছিল এখানে। আবার যখন তিনি নিঃসঙ্গ হয়েছেন তার প্রতিফলন দেখতে পাই ছোটো ছোটো পোষ্টকার্ডের উপর। যেখানে তিনি এঁকে রেখেছেন পুরীর সৌন্দর্য্য আর সঙ্গে তাঁর একাকীত্বের রঙ। যার সাথে সূর্যাস্ত রাতের আকাশ আর সমুদ্রের ঢেউ এক হয়ে গেছে। সেখানে যেন তিনি “বেদনার ধন” ও “গভীর সুর” এর সন্ধান করে গেছেন। গাণিতিক শর্তকে ভেঙে একের পর এক লিথোগ্রাফ করে গেছেন বিচিত্রার বাড়িতে আর সেখানেই তো ধরে রাখলেন তাঁর ব্যঙ্গচিত্রের মহিমাকে। তার নিদর্শনও দেখতে পাই এখানে। ভিস্যুয়াল কালচার-এর প্রয়োগ দেখি তাঁর ফটোগ্রাফিতে। জোড়াসাঁকোর বাড়িতে নাটকে যখন তাঁর অংশ থাকতো না তখন তিনি ছবি তুলতেন।

 রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুর ও অন্যান্যরা, বাল্মীকি প্রতিভা।গগনেন্দ্রনাথ ঠাকুরের তোলা আলোকচিত্র।

ঠিক সেরকমই কিছু ছবি দেখি যেখানে “বিসর্জন” নাটকে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এবং “বাল্মীকি প্রতিভা” নৃত্যনাট্যে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এবং অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুর অভিনয় করছেন। তাঁর তোলা আরেকটি ছবি যা অবশ্যই উল্লেখযোগ্য তা হলো “সেলফ পোট্রেট”। আজকের দিনের সেলফিকেও লজ্জা দিতে পারে অসাধারণ ছবিখানি!

সেলফ পোট্রেট গগনেন্দ্রনাথ ঠাকুরের তোলা আলোকচিত্র।

এবার রবীন্দ্রনাথের ছবির কথা। প্রদর্শনীতে ছিল ১৯৩২ – এর তাঁর সরকারি আর্ট কলেজের প্রদর্শনীতে থাকা ছবিও। সেই সময়ে যে ক্যাটালগ প্রকাশিত হয়েছিল তাতেও ছাপা আছে এখানে প্রদর্শিত ‘দ্য ভিসন’ নামের চিত্রটি। এটি একটি দুর্লভ অভিজ্ঞতা। আর ছিল ছাপাই ছবি। কিউরেটর জানান – ‘রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর সেসময়ে ছাত্র মুকুল দে ও নন্দলাল বসুকে উৎসাহ দিতেন ছাপাই ছবি শিক্ষায়, নন্দলাল বসুকে নির্দেশ দেন সহজপাঠে ছাপাই ছবি ব্যবহার করার জন্যে।’ তা ছাড়া নিজেও করেছেন এচিং লিথো ইত্যাদি যার কিছু নিদর্শন ছিল এখানে। যা অনেকেরই অদেখা।

‘দ্য রুইনড বুদ্ধিস্ট মনেস্ট্রি’, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের দ্বারা অঙ্কিত।

আর ছিল রবীন্দ্র ভাবনায় স্থাপত্য চিন্তার কিছু গ্রাউন্ড প্ল্যান ও এলিভিশন ড্রয়িং যেগুলি করেছিলেন সুরেন্দ্রনাথ কর। এগুলি প্রমাণ করে যে কীভাবে ঔপনিবেশিক স্থাপত্য চিন্তার ধারাকে চ্যালেঞ্জ করছেন রবীন্দ্রনাথ। এই ধারা সমকালীন স্থাপত্য ভাবনার পথে নতুন মোড় এনেছিল। এখানে দেখা গেল সুরেন্দ্রনাথ করের আঁকা অনেক গুলি শান্তিনিকেতনের গুরুত্বপূর্ণ বাড়ির নকশা। সঙ্গে কলকাতার মহাজাতি সদন যেটিরও নকশা করেছিলেন সুরেন্দ্রনাথ কর। সম্পূর্ণভাবে দেশীয় উপাদান প্রয়োগ করে এই স্থাপত্য তৈরি হয়েছিল। এর সঙ্গে রাখা হয়েছিল আর্ট কলেজের সেই প্রথম দিকের অন্নদা প্রসাদ বাকচীর মতো শিল্পীদের সার্ভের জন্য করা লিথো ছবিগুলি। তাই সুরেন করের নকশাগুলি দেখলে মনে হতে থাকে ঠাকুর ত্রয়ী কীভাবে গাণিতিক ছক থেকে চিত্র ও দৃশ্য চর্চাকে মুক্ত করেছিলেন।

শিল্পকলার উন্মোচনের সাথে সাথে এসেছিল কিছু পারিবারিক স্রোত, যা এই প্রদর্শনীতে পা না রাখলে আমি জানতে পারতাম না। “মায়ের আশীর্বাদ” – যেখানে মায়ের শাড়ি পরিয়ে ছোট্ট গগনেন্দ্রনাথ ঠাকুরের ছবি। ছবিটি গুণু ঠাকুরের তোলা। দেবদত্ত গুপ্ত জানান – ‘সেসময়ে ও তার পরবর্তীকালে অনেক বাড়িতেই সন্তানকে মায়ের শাড়ি পরানোকে ঘিরে অনুষ্ঠান হতো। সন্তান বাবার পদবী ব্যবহার করলেও সন্তান মায়েরও। ঠাকুরবাড়িতেও সুন্দর ছড়া লিখে নিমন্ত্রণ পত্র তৈরি হতো এবং নিমন্ত্রিত থাকতেন সমাজের সকল সম্প্রদায়ের মানুষজন।’ – এর থেকে আরও একবার ঠাকুরবাড়ির মুক্তমনা বাতাবরণের ইঙ্গিত পাই। প্রসঙ্গত কথা বলতে গিয়ে আমার উপরি পাওনা ছিল ওই নিমন্ত্রণ পত্রের ছড়াটা শোনা। এভাবেই তিন ঠাকুরের শিল্পকলায় যে জীবনের স্রোত ও দৃশ্যত বস্তুকে শিল্পে যোগ করা, তা এই প্রদর্শনীর প্রধান ও অন্যতম দিক ছিল। আশা রাখি এইরকম কিউরেটেড প্রদর্শনী আরও হবে আমার এই তিলোত্তমার বুকে।

ছবিসূত্র- আকার প্রকার আর্ট গ্যালারী

About চার নম্বর প্ল্যাটফর্ম 3695 Articles
ইন্টারনেটের নতুন কাগজ

আপনার মতামত...