পিরিয়ড ছুটি : অপমানের অজুহাত নাকি নারীর ক্ষমতায়ন?

অন্বেষা বন্দ্যোপাধ্যায়

 

প্রশ্নটা অনেক দিন ধরেই ভাবাচ্ছিল– যে রক্ত নারীত্বের শারীরিক পূর্ণতার প্রতীক, যে রক্তের মধ্যে জারিত হয় ভবিষ্যৎ– অর্থাৎ স্বাভাবিক উপায়ে মা হওয়ার সম্ভাবনা, সে রক্ত কী করে কাউকে অশুদ্ধ করতে পারে? মাসিক এই রক্তপাত না হলে যেখানে দুশ্চিন্তার শেষ থাকে না, সেই রক্তই কেন কোনও শুভ অনুষ্ঠানে ব্রাত্য? মেয়েদের সেই সময় পুজোপাঠ, আচার-অনুষ্ঠান থেকে কেন দূরে রাখা হবে? যে মেয়ে পিরিয়ডস নিয়ে পুজো, বিয়ে, শ্রাদ্ধানুষ্ঠান করেছে– তার তো কোনও ‘ক্ষতি’ হয়নি৷ ঈশ্বর ‘অসন্তুষ্ট হয়েছেন’ বলে তো বিশেষ বার্তাও আসেনি, তা হলে?

এই পিরিয়ডসকে ঢাল করেই কেরালার শবরীমালা মন্দিরে মহিলাদের প্রবেশ নিষেধ৷ এখনও কোনও কোনও জায়গায়, ঋতুস্রাবের সময়ে মেয়েদের আলাদা ঘরে থাকতে হয়৷ সমাজপতিরা এক সময়ে এই বিধানই দিয়েছিলেন, তা আজও চলছে৷ যে পুরুষতান্ত্রিকতা মহিলাদের উপর এই বিধিনিষেধ আরোপ করেছে, সেই মানসিকতা থেকেই কিন্তু বহু পুরুষ পিরিয়ডসের সময়ও স্ত্রীকে সহবাসে বাধ্য করেন৷ চোখে আঙুল দিয়ে প্রমাণ করতে চান, তাঁদের ইচ্ছাটাই শেষ কথা৷ সেই সময় শুভ-অশুভ-র কোনও বাধা থাকে না৷ কাজেই ‘আরোপিত’ সংজ্ঞায় প্রতি মাসে মেয়েরা অশুচি হয়৷ কী অদ্ভুত নিয়ম৷ আর পাল্টা প্রশ্ন করলে শুনতে হয়, ‘লাজলজ্জার মাথা খাওয়া!’ কাজেই ‘কথা বলো না, কেউ শব্দ ক’রো না, ভগবান নিদ্রা গিয়েছেন, গোলযোগ সইতে পারেন না৷’

তাই যেই যুক্তির প্রশ্ন বড় করে দেখা দেয়, তখন তাকে ধামাচাপা দিতে ব্যস্ত হয়ে ওঠেন দণ্ডমুণ্ডের কর্তারা৷ মনুবাদকে ঢাল করে চলে তাল ঠোকা৷ ‘পিরিয়ডের’ সুযোগে মহিলাদের দুর্বল প্রমাণ করার নানা প্রয়াস চলে৷ বৈদিক যুগে তো এমন বিধিনিষেধ ছিল না, তা হলে?

এই সব প্রশ্নের কোনও সহজ উত্তর নেই৷ প্রচলিত রীতি, কুসংস্কারকে হাতিয়ার করেই যুক্তি সাজানোর প্রচেষ্টা হয়, কিন্তু তা তর্কের কাছে হার মানে৷ যুগের উত্তরণে প্রতিটি সমাজ নিজেদের মতো করে তার উত্তর সাজিয়ে নেয়৷ মেনে নিতে পারলে, ‘ভালো মেয়ে, লক্ষ্মী মেয়ে’ আর না পারলে, ‘মেয়ে মানুষের অত তেজ ভালো নয়!’

ঠিক সে ভাবেই উত্তর সাজিয়ে নিচ্ছে ‘পিরিয়ড লিভস’৷ সম্প্রতি মুম্বইয়ের দু’টি সংস্থা পিরিয়ডসের প্রথম দিন ছুটি ঘোষণা করেছে৷ তা নিয়ে কেউ কেউ যেমন উচ্ছ্বসিত, তেমনই কেউ কেউ অত্যন্ত বিরক্ত৷ কেউ মনে করছেন, এটাই যে কোনও সংস্থার করা উচিত৷ আবার কেউ মনে করছেন, মোটেই না, পিরিয়ডসের জন্য ছুটির কোনও প্রয়োজনীয়তা নেই৷

ব্যক্তিগতভাবে, আমি মনে করি, পিরিয়ডসের জন্য ছুটি নিষ্প্রয়োজন৷ সমাজের প্রতিটি ধাপে যেখানে ‘নারীর ক্ষমতায়ন’ ও ‘লিঙ্গসাম্য’ নিয়ে কথায় কথায় আন্দোলন হচ্ছে, সচেতনতা গড়ে তোলা হচ্ছে– সেখানে এই ছুটি মহিলাদের একধাপ পিছিয়ে দেবে৷ আঙুল তুলতে এক মুহূর্তও দেরি হবে না যে, ‘আরে ওর (যে কোনও মহিলা কর্মী) তো মাসে একটা একস্ট্রা ছুটি বাঁধা৷ প্রয়োজনে দু’দিন৷ ভালোই আছে৷ মেয়ে হয়ে যে আর কত সুবিধা পাবে!’ না, এই ভাবনা কোনও পুরুষবিদ্বেষী মনোভাব থেকে নয়, বরং আমাদের সামাজিক কাঠামোর নিরিখে বিশ্লেষিত৷ শহুরে নাগরিক সমাজে যত মহিলাই কাজ করুন না কেন, তাঁদের এখনও ‘সম’ হিসেবে কিন্তু কোথাওই সেভাবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়নি৷ তা সে বেতনের ক্ষেত্রেই হোক, বা প্রোমোশনের ক্ষেত্রে৷ তা কিন্তু মোটেই সংশ্লিষ্ট মহিলা কর্মীর কর্মদক্ষতা, শিক্ষাগত যোগ্যতা ইত্যাদির জন্য নয়, তা একেবারেই তিনি ‘মহিলা’ বলে৷ ঠিক যে কারণে মা হওয়ার পরে বহু মহিলা কর্মী নানা বৈষম্যমূলক আচরণের শিকার হন, চাকরি করতে করতে বিয়ে করলে টেরাবাঁকা কথা শুনতে হয়– সেই একই কারণে ‘পিরিয়ড লিভস’-ও হয়ে উঠবে একটা বৈষম্যের মাপকাঠি৷ হয়তো শুরু হবে নোংরা কিছু জোকসও৷

কিন্তু যাঁরা এই ছুটির কথা ভেবেছেন, তা হলে তারা কেন তেমন মনে করলেন? কোথায় নিহিত রয়েছে এর উৎস৷ অনেকেই জাপান-কেরিয়ার উদাহরণ দিচ্ছেন, যেখানে বহু দিন ধরে এই ছুটি চলে আসছে৷ তা আচমকা কারও মনে হওয়ায় নয়, সে দেশের শ্রম আইনেই রয়েছে ‘মহিলা কর্মীদের’ এই ছুটি মঞ্জুর করার কথা৷ তাই অবশ্যম্ভাবী প্রশ্নটাই হল– ‘পিরিয়ড লিভস’-এর কেন প্রয়োজন? এ ক্ষেত্রে বেশ কয়েকটি যুক্তি থাকতে পারে–

১) প্রথম দিন বা প্রথম দু’দিন অস্বাভাবিক পেটব্যথা ও ফ্লো-র জন্য কাজে মনোনিবেশ করায় অসুবিধা হয়৷ হাঁটা-চলাতেও অনেক সময় সমস্যা হয়।

২) সেই সময় মানসিকভাবে মহিলারা একটু বেশি চঞ্চল ও বিরক্ত হয়ে থাকেন, ফলে তাঁদের পক্ষে সেরাটা দেওয়ার সম্ভব হয় না।

৩) কোথাও বসলে রক্তের দাগ লেগে যাবে না তো– তা নিয়ে প্রতি মুহূর্তে একটা অস্বস্তি থাকে৷ বহু অফিসে স্যানিটারি ন্যাপকিন ব্যবহারের ঠিকঠাক ব্যবস্থা থাকে না ৷ এমনকি জলও নয়।

৪) হঠাৎ শরীর খারাপ করলে পুরুষ সহকর্মীদের বলে বেরিয়ে যাওয়াটা সব সময় সম্ভব হয় না।

হয়তো এই সব কথাই ঠিক৷ এক জন মহিলা হয়ে আমি মোটেই অস্বীকার করছি না যে, আমার এরকম কোনও সমস্যাই হয় না৷ সবগুলোই হয়৷ অনেক সময় বাড়তি উপসর্গও থাকে– অসম্ভব পা ব্যথা, কোমর ব্যথা৷ মাঝে মাঝে মনে হয় ছুট্টে বাড়ি চলে যাই৷ একটু শুয়ে থাকি, তা হলে বোধহয় ভালো লাগবে৷ কিন্তু অস্বাভাবিক কাজের চাপে বাড়ি চলে যাওয়া বা ছুটি নেওয়া তো দূর-অস্ত, সবসময় প্রয়োজন মতো টয়লেটেও যাওয়া সম্ভব হয় না৷ এ সব দিক থেকে দেখতে গেলে এই ছুটির বিষয়টা তো আমার লুফে নেওয়া উচিত৷ কিন্তু সেটা আমি পারছি না৷ কেন?

‘পিরিয়ড লিভস’ মেনে নিতে না পারার প্রথম কারণটাই হল, এটা লিঙ্গসাম্যের কাছে বিশাল অন্তরায়৷ এই পিতৃতান্ত্রিক সমাজে একজন মহিলাকে যদি প্রতি মাসে অতিরিক্তি একটা বা দু’টো ছুটি দেওয়া হয়, তা হলে তাঁর পুরুষ সহকর্মীদের অধিকাংশই তা নিয়ে এমনই নিকৃষ্টমানের আলোচনা শুরু করবেন, যেটা সেই মেয়েটির সম্মানের প্রতি খুব একটা গ্রহণযোগ্য হবে না৷ শুধু তাই-ই নয়, মহিলাদের কম পরিমাণে চাকরিতে নিয়োগ করার একটা ঢাল হয়ে উঠতে পারে এই বিশেষ ছুটি৷ মেয়েটি কাজে যতই দক্ষ হোক না কেন, তিনি অতিরিক্ত ছুটি পাচ্ছেন, সে কথা তাঁকে হজম করতেই হবে৷

দ্বিতীয়ত, পিরিয়ডসের সময় যদি বাকি সব কাজ– বাজার করা, রান্না করা, ঘরকন্নার কাজ-সহ সব কিছু একজন মহিলা করতে পারেন, তা হলে তিনি হঠাৎ কেন অফিসের কাজের ক্ষেত্রে মনোনিবেশ করতে পারবেন না? এমন উদাহরণ কি বিশ্বের কোনও দেশে রয়েছে, যেখানে পিরিয়ডসের জন্য সব কাজ ছেড়ে একটি মেয়ে শুধু শুয়ে-বসে রয়েছেন? মেয়েরা এখন প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রেও কাজ করছেন৷ অর্থাৎ প্রতি মুহূর্তে তাঁদের সজাগ থাকতে হয়, আক্রমণ বা প্রতিআক্রমণের জন্য প্রস্তুত থাকতে হয়৷ তাঁরা কি পিরিয়ডসের প্রথম দিন ছুটি পান? না, পান না৷ যদি সেই জনিত কোনও অসুস্থতা ইত্যাদি দেখা যায়, তা হলে প্রাপ্য ছুটি থেকেই তাঁরা ছুটি নেন৷

ক্রিকেট, ফুটবল, জিমন্যাস্টিক, টেনিস-সহ আরও যে সব কায়িক শ্রমের খেলা রয়েছে, সে সব প্রতিযোগিতার ডেট কি প্রতিটি অংশগ্রহণকারী মহিলার পিরিয়ডসের ডেট দেখে স্থির করা হয়? না কি খেলোয়াড়রা ‘খেলব না’ বলে নিজে সরে যান? সম্প্রতি সেরেনা উইলিয়ামস ফার্স্ট ট্রায়মেস্টারের গর্ভাবস্থায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন, যে সময় চিকিৎসকদের পরামর্শে বহু মহিলাকে একেবারে বেড-রেস্টে থাকতে হয়৷ কই সে উদাহরণ তো কোথাও আসছে না! তিনি সেলিব্রিটি বলে আসছে না, তা নয় কিন্তু৷ সেরেনার এই সাহস, খেলার প্রতি তাঁর ডেডিকেশন নিয়ে কথা হচ্ছে না, আলোচনা হচ্ছে তিনি কেন লুকিয়ে গেলেন, তা নিয়ে৷ কেন? উত্তরটা সহজ৷ পুরুষতান্ত্রিক সমাজ তো দুর্বল নারীকে দেখাতে চায়, তাঁদের আস্ফালন তাদের পছন্দ নয়৷ তাই সেরেনার পেটের ছবি গুরুত্ব পাচ্ছে, ওই সময়ে তাঁর অনবদ্য খেলা নয়৷ কই কেউ তো বলছে না, ‘এটা একটা মেয়েই পারে৷’ তা হলে এগুলো যখন সবই সম্ভব, মহিলারাই প্রমাণ করছেন, সম্ভব– তা হলে কেন পিরিয়ডস, যা একেবারেই একটি স্বাভাবিক শারীরবৃত্তীয় মাসিক প্রক্রিয়া, তার জন্য ছুটির প্রয়োজন কীসে?

সম্প্রতি একটি গবেষণায় বলা হয়েছে, মহিলারা এই সময় অত্যক্ত বিরক্ত থাকেন, কাজে মন দিতে পারেন না– এ সব তত্ত্বের কোনও প্রমাণ পাওয়া যায়নি৷ একটি মেয়ে বরং পিরিয়ডসের আগে কিছু দিন একটু বিরক্ত, মনমরা থাকতে পারে (যাকে প্রি-মেনস্ট্রুয়াল সিনড্রোম বা পিএমএস বলে), কিন্তু পিরিয়ডস শুরু হলে কিছু হরমোনের নিঃসরণের জন্য তা স্বাভাবিক মাত্রায় ফেরত আসে৷ ফলে কাজের ক্ষেত্রে তা মোটেই কোনও বাধা সৃষ্টি করে না৷ বা সে সময় মহিলাদের ‘চিন্তা করার ক্ষমতা কমে যায়’– এমন কোনও তথ্যও কোথাও খুঁজে পাওয়া যায়নি৷ বরং তাঁরা অনেক উৎফুল্ল মনে কাজ করতে পারেন৷ তাই অফিসে স্বাভাবিক কাজকর্ম করতে কোনওই অসুবিধা নেই৷ ফলে প্রশ্ন, যে মহিলাদের পিরিয়ডস নিয়ে কোনও বিশেষ সমস্যা নেই, তাঁদের কেন ছুটি নিতে হবে? কাজেই মহিলাদের স্বাস্থ্যের কথা ভেবে ‘পিরিয়ডস লিভ’ চালু হচ্ছে, সে কথা খুব যুক্তিগ্রাহ্য নয়৷

এর পাশাপাশি অবধারিতভাবে আর একটি যে বিষয় আসে, তা হল– এ তো একেবারেই শহরকেন্দ্রিক একটা বিশেষ ছুটির ব্যবস্থা৷ গ্রামে যে সব মহিলারা মাঠে কাজ করেন, বীজ বোনেন, ফসল কাটেন, নিত্যি তিরিশ দিন বড় বড় বোঁচকা নিয়ে ফার্স্ট ট্রেন ধরে শহরে এসে ফুল-ফল-সবজি বেচেন, ১০০ দিনের কাজ করেন– তাঁদেরও তো একই ধরনের সমস্যা থাকতে পারে৷ তাঁরা যদি পিরিয়ডস নিয়ে রোজ সে সব কাজ করতে পারেন, তা হলে আমরা শহুরে মহিলারা কেন উন্নত স্যানিটারি ন্যাপকিনের প্রোটেকশন নিয়েও পারব না? এ কথা বললে বোধ হয় ভুল হবে না, গ্রামে এখনও মোটা কাপড় দিয়ে প্যাড বানিয়েই অধিকাংশ মা-বোনেরা ব্যবহার করেন৷ সেটা কেচে-ধুয়ে ফের পরের মাসের জন্য রেখে দেওয়া হয়৷ কাজেই ‘দাগ লেগে যাওয়ার ভয়’, তাঁদের আমাদের থেকে বেশি বই কম নয়৷ তা হলে কোন যুক্তিতে আমরা ছুটি চাইতে পারি?

আরও আছে, আমার-আপনার বাড়িতে যিনি পরিচারিকার কাজ করেন, তাঁকে কি কখনও কেউ জিজ্ঞেস করেন, ‘তোমার পিরিয়ডসের ডেট কবে?’ সেই মতো তাঁকে কি প্রথম ও দ্বিতীয় দিনে আমরা ছুটি দিই, বা কখনও বলি– আজ তোমাকে ঘর মুছতে হবে না, বা বাসন মাজতে হবে না? না কখনও বলি না৷ কিন্তু আমার অফিস যদি বলে, পিরিয়ড-এর জন্য আপনি ছুটি পাবেন, তখন সেই আমি-ই কিন্তু আনন্দে লাফাব৷ ভুলে যাব, আমার বাড়িতে যিনি পরিচারিকার কাজ করেন, তাঁরও এই ছুটি প্রাপ্য৷

আর এই সব যুক্তি-তর্ককে যদি একপাশে সরিয়েও রাখা হয়, তার পরেও থেকে যায় একটা বিরাট প্রশ্ন– যে পিরিয়ড নিয়ে এখনও সব মহিলারা আলোচনাই করতে চান না, পুরুষদের কাছে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এটা একটা ‘মুচকি হাসির মেয়েলি ব্যাপার’, যেখানে স্যানিটারি ন্যাপকিনে জিএসটি বসানো নিয়ে এখনও সেভাবে সরব হওয়া যাচ্ছে না, সেই সমাজের কাছে কি প্রত্যেক মহিলা সহকর্মীর জানান দেওয়ার খুব প্রয়োজন রয়েছে, যে তাঁর ‘পিরিয়ডস’ হয়েছে?

আমি-আপনি মানি চাই না-ই মানি, পিরিয়ডস এখনও একটা ঢাক-ঢাক-গুড়-গুড় বিষয়৷ বাড়িতে বাবা-দাদা-ভাই-কাকা-মামা-দাদু (অর্থাৎ পুরুষ সদস্য)-দের থেকে লুকিয়ে রাখার বিষয়৷ কো-এড স্কুলে পড়লে ‘ছেলেদের বলা যাবে না’-র মতো একটা গুরুতর ব্যাপার৷ ছোটবেলা থেকে মেয়েদের এই শিক্ষাই দেওয়া হয়৷ তাদের শেখানো হয়, ‘কাউকে বলবে না, ঠাকুর ঘরে ঢুকবে না, পবিত্র কিছু ছোঁবে না৷’ সেই একই সমাজে বড় হয় ওই মহিলারই পুরুষ সহকর্মীরাও, যাঁরা ছোট থেকেই জেনে এসেছেন, ‘এটা মেয়েদের একটা গোপন রোগ৷’ টিভিতে বিভিন্ন স্যানিটারি ন্যাপকিনের বিজ্ঞাপন দেখে তাঁদের আন্দাজ হয়েছে, ‘সেই সময় রক্ত বেরোয়, আর ওটা যাতে কেউ দেখতে না পায়, সে জন্য এগুলো মেয়েরা পরে!’ এমনকি বিবাহিত পুরুষরাও সব ক্ষেত্রে পিরিয়ডস নিয়ে ও সেই সংক্রান্ত জটিলতা নিয়ে সচেতন নন৷ অল্পবয়সিরাও অকারণ গোপনীয়তার কারণে ভাসা-ভাসা ধারণা গড়ে তোলেন, যা বেশিরভাগ সময়েই তাঁদের মস্করা বা ক্যাজুয়াল সেক্সের জন্য আলোচনায় আসে৷

সে জন্যই এই ছুটি নিয়ে বিতর্ক৷ আমার পিরিয়ডসের সময় যদি আমি অসুস্থ বোধ করি, আমি ‘সিক লিভ’ নিতে পারি৷ কিন্তু সে তো যদি বাড়ি থাকতে থাকতেই আরম্ভ হয়, তা হলেই৷ অফিসের এসে যদি পিরিয়ডস হয়, তখনই যদি অসহ্য পেট ব্যথা করে (যা বহু মেয়েরই হয়, শুরুর কয়েক ঘণ্টাই সব চেয়ে বেশি যন্ত্রণা অনুভূত হয়) তা হলে কি তিনি সঙ্গে সঙ্গে ছুটি নিয়ে বেরিয়ে যেতে পারবেন? বা আমাদের সমাজ কি সেই জায়গায় এসেছে যেখানে দাঁড়িয়ে বলতে পারব, ‘গাইস, আই জাস্ট হ্যাভ গট পিরিয়ড৷ আমি বাড়ি যাচ্ছি?’ না, আসেনি৷

তাই ছুটি নয়, সবার আগে দরকার মেয়েদের পাশাপাশি ছেলেদেরও পিরিয়ডস বিষয়ে জানানো, যেখান থেকে তাঁরা বুঝতে পারেন, সেই সময় মহিলাদের শরীরে কতটা শারীরিক ও মানসিক পরিবর্তন হয়৷ সে সময় কী ভাবে তাঁরা মহিলাদের সাহায্য করতে পারেন৷

ছুটি দিলে পিরিয়ডস নিয়ে ছুঁৎমার্গ কাটবে না৷ যাবে না কুসংস্কারও৷ মাসে মহিলারা পাঁচ দিন ‘অপবিত্র’ সে ধারণাও থেকে যাবে বহাল তবিয়তে৷ তার থেকে এটা নিয়ে আলোচনা হোক, সচেতনতা বাড়ুক৷ এটা যেমন ঢাকঢোল পিটিয়ে বলার বিষয় নয়, তেমনই এটা লুকিয়ে রাখার বিষয়ও নয়৷ স্বাভাবিক শারীরবৃত্তীয় প্রক্রিয়া হিসেবে তা সমাজের সামনে তুলে ধরলেই অনেক কিছু সহজ হয়ে যায়৷

ছুটির জায়গায় আমাদের কি সেই কাজটাতেই বেশি গুরুত্ব দেওয়া উচিত নয়?

 

About চার নম্বর প্ল্যাটফর্ম 4755 Articles
ইন্টারনেটের নতুন কাগজ

Be the first to comment

আপনার মতামত...