উই লস্ট আওয়ার ফ্রেন্ড

সমর (বদ্রু) ব্যানার্জি

 

 

 

 

 

 

 

 

পিকে ব্যানার্জি সম্পর্কে অনুভূতি তো প্রচুর। একসঙ্গে খেলেছি এতদিন। কত ম্যাচ খেলেছি। ওর সঙ্গে আমার প্রথম পরিচয় সেই ফিফটি টু-ফিফটি থ্রিতে। জামশেদপুরে, চাইবাসায়। ওখানে আমাদের আরজিকর টিম গিয়েছিল। আমি তখন আরজিকরের ছাত্র। আরজিকর টিম গিয়েছিল ওখানে একটা এক্সিবিশন ম্যাচ খেলতে, চাইবাসায়। পিকে তখন ওইখান থেকেই তো মানুষ হচ্ছে। আরেকজন ছেলে ছিল মানি বলে ওদের টিমে। ও ব্যাক খেলত। ওরা দুজনই খুব প্রমিসিং ছিল। পিকে ব্যানার্জি তো পিকে ব্যানার্জি হয়েছে অনেক পরে। তখনও তো পিকে ব্যানার্জি হয়নি। সেই তখনই আমি ওকে দেখেছিলাম।

নাইনটিন ফিফটি থ্রির এন্ডে খুব ঠান্ডার সময় আমরা মোহনবাগানের হয়ে মনিপুরের ইম্ফলে ফ্রেন্ডলি এক্সিবিশন ম্যাচ খেলতে গিয়েছিলাম। তখন পিকে ব্যানার্জি আমাদের সঙ্গে ট্রায়াল দেবার জন্য সেখানে গিয়েছিল। খেলা তো যা হোক হয়েছিল, অর্ডিনারি খেলাই হয়েছিল। কিন্তু পিকে খুব জুবিলান্ট টাইপের ছিল। খুব জোক করত। আর জোক করলে কখন কীভাবে কোথায় করতে হবে সেটা নিয়ে একটু সমস্যা হত। পার্টিতে ডিনার টেবিলে হয়তো এমন একটা কথা বলল, যে আমরা সবাই হেসে উঠতাম। সেই জন্য আমরা অনেক বকুনিও খেয়েছি। মান্নাদা ধমক দিত যে অ্যাই পার্টির মধ্যে এসব করবে না। পিকে ব্যানার্জি যেভাবে ওইগুলো পেশ করত সেটা ক্লাবের অফিশিয়ালদের ঠিক মনঃপুত হয়নি আর কি। তখন তো প্লেয়ারদের সব দেখে টেখে নিত। খুব সিলেক্টেড প্লেয়ার নেওয়া হত। খেলা তো আছেই, সেই সঙ্গে বিহেভিয়ার, ট্রিটমেন্ট এই সমস্তও খুব দেখা হত যেকোনও টিমের প্লেয়ার এলেই। সেই সব কারণেই বোধহয় আনফরচুনেটলি আমরা পিকেকে পেলাম না আমাদের সঙ্গে। ওই বছরই ও তারপরে এরিয়ান্সে জয়েন করে। একটা সিজন ওখানেই ছিল। আর তারপরেই রেলে চাকরি এবং রেলে খেলা। ওখানে ও পুরো আধিপত্য পেয়ে গেল। রেল তো আর তখন চ্যাম্পিয়ন টিম ছিল না। একটা ভালো মিডিওকার দল ছিল। একটা চ্যাম্পিয়ন টিমে প্রথম বছরে জয়েন করে সাকসেসফুল হওয়া প্লেয়ারদের তখন খুব একটা চিন্তার ব্যাপার ছিল। কলকাতা মাঠের হাওয়া বলা হত না? কথা ছিল, হাওয়া বুঝতেই এক বছর লাগে। এইগুলো সব ছিল আগেকার দিনে। যাইহোক এইভাবেই এরিয়ান্স থেকে ও রেলে জয়েন করল। রেলে তো তখন একটাই জায়গা, পিকে ব্যানার্জি ছাড়া টিম হত না। রেল ওকে অনেক লিড দিয়েছিল, যাকে বলে হার্টিলি কো-অপারেশন পেয়েছিল পিকে ব্যানার্জি রেল থেকে। ও-ও খুব সাকসেসফুল হয়েছিল। আধিপত্য নিয়ে খেলতে পারত রেলে। খুব ফ্রিলি খেলতে পারত। সাপোর্টারদের চাপ বড় টিমে একটা বড় চাপ। রেলে সেই চাপটা তো ছিল না। যেহেতু প্রত্যাশাও ছিল না, হারল কি জিতল কিছু এসে যেত না। পিকে কিন্তু ওখানে খেলেই খুব নাম করেছিল। বছর দুয়েকের মধ্যেই বেশ নাম করে ফেলেছিল।

ফাস্ট ছিল ভীষণ। উইথ দ্য বল স্পিড ছিল মারাত্মক। রানিং অ্যাক্টিভিটি খুব বেশি রকম ছিল। খুবই স্পিডি ছিল। আমি, ও আমাদের সবারই স্পিড খুব ভালো ছিল। খুব হেল্পফুল ছিল। ও করত কি দুটো উইং দিয়ে– লেফট এবং রাইট, দুটো উইং দিয়েই খেলতে পারত। এই দুটো সাইড দিয়েই অপোনেন্টের সঙ্গে ডামি খেলে বেরোতে পারত। গোলগেটিং পজিশনে চলে যেতে পারত। স্কোরিং এবিলিটিও খুব ভালো ছিল। খুব ফ্লেক্সিবল বডি ছিল। হেড ছিল। যাকে বলে কমপ্লিট ফুটবলার। খেটেখুটে নিজেকে কমপ্লিট ফুটবলার হিসেবে গড়ে তুলেছিল। বাঘাদাও ওর পেছনে অনেক খেটেছিলেন। বাঘা সোম। আর জাতীয় দলে রহিম সাহেব। রহিম সাহেব তো আমাদের সকলকেই খুব স্নেহ করতেন। আমাদের সকলকেই সাইকোলজিক্যালি স্টাডি করতে পারতেন। উনি যেমন খেলাও স্টাডি করতেন তেমনি আমাদের সাইকোলজিক্যালিও স্টাডি করতেন।

যাইহোক পিকে ব্যানার্জির সঙ্গে আমার তো খুবই অন্তরঙ্গ সম্পর্ক ছিল। আমরা এক সঙ্গে খেলেছি, আমাদের মধ্যে ভালোবাসা ছিল, আন্তরিক মেলামেশা ছিল। নিজেদের মতো করে আমরা একসঙ্গে খেলেছি। জাতীয় স্তরেও খেলেছি, ন্যাশনাল টিমেও খেলেছি। জাতীয় স্তরে সন্তোষ ট্রফিতে একসঙ্গে খেলেছি আমরা। পিকে রেলের হলেও তখনকার দিনে লিয়েনে খেলা যেত। এইসব করেই জীবনটা আমাদের কেটে গেছে। পরপর দুবার অলিম্পিকে আমরা দুজন ক্যাপ্টেনও হয়েছি। ফিফটি সিক্সে আমি অধিনায়ক হয়েছিলাম। পিকে ছিল সেই টিমে। আর সিক্সটিতে রোম অলিম্পিকে পিকে ক্যাপ্টেন হয়েছিল। ভগবান এই সৌভাগ্য দিয়েছিল আমাদের দুজনকে।

পিকে ব্যানার্জির সঙ্গে খেলা ম্যাচের কথা বলতে গেলে ১৯৫৮ সালের লিগের ফাইনাল ম্যাচের কথা মনে পড়ে। লিগের ফাইনাল ম্যাচ বলতে সেটাই চ্যাম্পিয়নশিপ ম্যাচ ছিল। আমরা পয়েন্ট লস করলে চ্যাম্পিয়ন হতে পারব না। ইস্টার্ন রেল আমাদের ঘাড়ে। ইস্টবেঙ্গল সেবার ইস্টার্ন রেলকে ওয়াকওভার দিয়েছিল যাঁরা খবর রাখেন তাঁদের মনে থাকার কথা। সেই ম্যাচে আমরা একটা পেনাল্টি মিস করি। বর্মন পেনাল্টিটা সেভ করে দেয়। খুব ভালো ফিস্ট করে সেভ করে দেয়। সেই ম্যাচে সবচেয়ে গ্লোরিয়াস চান্সটা আমিই মিস করেছিলাম। সেই ম্যাচটা এখনও আমি ভুলতে পারি না। এখনও আক্ষেপ হয়। প্রদীপ সেই ম্যাচে একটা গোল করেছিল।

এমনিতে ও অনেক ম্যাচই আমার সঙ্গে খেলেছে। আমরা মোহনবাগানের হয়ে ফার ইস্টে মালোশিয়া বার্মা হংকং কুয়ালালামপুর এই সমস্ত জায়গায় খেলেছি। খুব ভালো রেজাল্ট করেছিলাম। সেখানে একটা ম্যাচে চারটে গোল দিয়েছিলাম আমরা। আমি দুখানা, প্রদীপ একটা, আর কেষ্ট পাল একটা। অনেকগুলো গোলই আমরা দিয়েছিলাম। প্রায় তিরিশ-পঁয়তিরিশটা টোটাল সিরিজে আমরা গোল করি। তার মধ্যে কেষ্ট করেছিল তেরো-চোদ্দখানা, আমি করেছিলাম দশটা, প্রদীপ করেছিল চারটে, আর চুনি করেছিল একটা। এগুলো তো আমি স্মৃতি থেকে বলছি, এগুলো বই খুললেই পরিসংখ্যান পাওয়া যাবে। এই হচ্ছে কথা।

পরবর্তীকালে কোচ হিসেবেও প্রদীপ খুব সফল হয়েছিল। ওর শেখানোর কায়দা— আসলে প্রদীপ খুব সুবক্তা ছিল। যে কোনও বিষয়ই খুব ভালো করে বুঝিয়ে বলতে পারত। ভাষার ওপরে ওর খুব দখল ছিল। ইংরেজি বাংলা হিন্দি তিনটে ভাষা মিশিয়ে এমন সুন্দরভাবে বলত সমস্ত কিছু প্লেয়াররা খুব এনজয় করত এবং ইন্সপায়ারড হত। এই জিনিসটার নামই হয়ে গেল ভোকাল টনিক। এগুলো ওর কোয়ালিটি ছিল। কোচেদের এইসব কোয়ালিটির দরকার হয়। প্রতিটা জিনিস খুব সুন্দর করে বুঝিয়ে বলতে পারত। অপোনেন্ট সম্পর্কে বুঝিয়ে বলত প্লেয়ারদের। এবং তারপরে খুব ইন্সপায়ার করত যাতে তারা মাঠে নেমে সেরা খেলাটা খেলতে পারে। প্লেয়ারদের শেখাত খুব সুন্দর করে। তাদের সুখে দুঃখে সঙ্গে থাকত। গেম রিডিং ভালো ছিল। এগুলো সবই ওর ছিল। আর ছিল বলেই ও সাকসেস পেয়েছে।

যাইহোক এই হচ্ছে কথা। ছেড়ে চলে গেল আমাদেরকে। শেষের দিকে খুব কষ্ট পেয়েছে। আমি গিয়েছিলাম একদিন দেখতে। মনটাও খুব ভেঙে গিয়েছিল। মনে হচ্ছিল না আর ও সার্ভাইভ করবে। খুব শক্ত জায়গায় চলে গেছিল রোগটা। যাই হোক চলে গেল ছেড়ে আমাদের। উই লস্ট আওয়ার ফ্রেন্ড। এই হচ্ছে কথা। তার আত্মার শান্তি কামনা করি। তার পরিবার-পরিজনদের সমবেদনা জানাই।

 


সাক্ষাৎকারের ভিত্তিতে অনুলিখিত

 

About চার নম্বর প্ল্যাটফর্ম 3229 Articles
ইন্টারনেটের নতুন কাগজ

Be the first to comment

আপনার মতামত...