স্বাধীনতা ২০১৭

রৌহিন ব্যানার্জী

 

“তুমি হায় বুঝবে কি হায়
ফুরফুরে দিন কেটে যায়
বোঝাচ্ছ স্বাধীনতার মানে
যে অধীন দিনে রাতে
বুলেটে যে বুক পাতে
সে বুঝেছে স্বাধীনতার মানে”-–

কাল ১৫ই আগস্টের দুপুরে, ছুটির আমেজে উল্লসিত আমরা যখন ‘গদর– এক প্রেমকথা’-র উত্তেজনা থেকে নিজেদের বঞ্চিত করে টুইটারে, ফেসবুকে দেশপ্রেম দেখাতে ব্যস্ত, তখন গর্বিত ভারতবাসীকে আরও গর্বিত করতে আন্তর্জালে ভেসে এল একটা ছবি-– বন্যাসঙ্কুলিত ধুবড়ি জেলার এক প্রাইমারি স্কুল, স্কুল মানে একটা আটচালা মাত্র-– জলে প্রায় অর্ধেক ডোবা, আর তার সামনে কোমরজলে দাঁড়িয়ে উত্থিত জাতীয় পতাকার দিকে তাকিয়ে রয়েছেন দুইজন শিক্ষক। একটু দূরে দুটি শিশু, জল তাদের গলা পর্যন্ত, তারাও তাকিয়ে রয়েছে ওপরে। দেশপ্রেমিকেরা ফেটে পড়লেন ভক্তিতে। আমাদের কয়েকজনের সর্বদা কু-গাওয়া স্বভাব। আমার মনে হল, ছবিটা যেন সোচ্চারে একটা কথাই বলছে-– আমার পরণের কাপড় নেই, হাঁটবার মতো রাস্তা নেই, চাষের জমি, থাকার ঘর, পড়ার ইস্কুল সব জলের তলায়-– কী খাব তার কোনও খবর নেই-– তবু পতাকা উড়ছে। স্বাধীনতা যে ঘোষণা করতেই হবে। নেই তো কী হয়েছে-– স্বাধীন তো!

কেমন স্বাধীন? ওই যে শিক্ষক, যিনি এসেছেন পতাকা উত্তোলন করতে, সঙ্গে খুঁজে পেতে ধরে এনেছেন দু’টি শিশুকে-– তাদের জীবনের ঝুঁকি জেনেও কারণ সে ঝুঁকি তো এমনিতেই আছে– তাঁর নিজের ঘরে জল ঢোকেনি? তাঁর এলাকায় ত্রাণের প্রয়োজন নেই? খাদ্য-বস্ত্র-বাসস্থানের প্রয়োজন নেই? তবু সেসব ফেলে পতাকা উত্তোলন প্রায়োরিটি হতে হল কেন? কারণ তিনি জানেন, চাকরিটা রাখতে হবে। কারণ তিনি জানেন যে সার্কুলারটি এসেছে, তার গুরুত্ব এসবের চেয়ে বেশি-– কারণ তিনি জানেন, ছবিটা তুলতে হবে। তিনি জানেন, স্বাধীনতার মানে পতাকা। স্বাধীনতার মানে আপোষ। বাচ্চাগুলি জানে স্বাধীনতার মানে একগলা জলে দাঁড়িয়ে শুধু মাথাটা উপর দিকে তুলে রাখা যাতে নাকে জল না ঢোকে।

৭১ তম স্বাধীনতা দিবস পেরিয়ে এলাম আমরা-– পতাকা উত্তোলনের ৭০ বছর। এই সত্তর বছরে আমরা অনেক পথ পেরিয়েছি-– অনেক কিছু এসেছে আমাদের। স্বাধীন দেশে উন্নয়নের জোয়ারে ভেসেছি আমরা-– ঝাঁ চকচকে রাস্তাঘাট, শীততাপ-নিয়ন্ত্রিত যানবাহন, মাল্টিপ্লেক্সে স্মার্ট আন্তর্জাতিক মানের সিনেমা, কেতাদুরস্ত কর্পোরেট হোটেল, দুনিয়ার সব ব্র্যান্ডের জামাকাপড়, গাড়ি, সাবান, হেলথ ড্রিঙ্ক। একটা সাধারণ গাড়ির যন্ত্রাংশ আমাদের নিজেদের প্রযুক্তিতে বানিয়ে উঠতে পারিনি, একটা পাতি কম্পিউটার বানানোর যন্ত্রাংশ বিদেশ থেকে আনানো হয়-– কিন্তু আমরা মঙ্গলযান বানিয়ে ফেলেছি, পরমাণু বোমা বানিয়ে ফেলেছি, চীন অবধি চলে যাবে এমন ক্ষেপণাস্ত্র বানিয়ে ফেলেছি। এবং স্বাধীনতার ৭০ বছর পার করেও এখনও প্রাইমারী ইস্কুলগুলি শুধুই আটচালা মাত্র-– কোথাও সেটুকুও নয়, ছাপরা জেলার বৌ’টি অন্ধকার থাকতে উঠে মাঠে ছোটে প্রাতঃকৃত্য সারতে, মণিপুরের মেয়েটি জানে না কখন তাকে নগ্ন করে সার্চ করতে চাইবে মিলিটারি, মালদা’র চাষিটি জানে না সে কাল সকালে গলায় দড়ি দিতে বাধ্য হবে কি না।

স্বাধীনতার ৭০ বছরে আমরা পা রাখি ৭০ টি অবোধ শিশুর লাশের ওপর দাঁড়িয়ে-– যারা হাসপাতালে গেছিল সেরে উঠতে। তাদের বাঁচানোর জন্য লড়ে গেলেন যে মানুষটি, প্রাণ বাঁচালেন অন্ততঃ ২০টি শিশুর, তাকে দুর্নীতির দায় মাথায় নিয়ে সরে যেতে হল, কারণ তিনি সরকারের “মুখ পুড়িয়েছেন”। কারণ সরকারের মুখ আর খেটে খাওয়া মানুষের মুখ এক নয়। স্বার্থ এক নয়। সরকারের স্বাধীনতা দিবস আছে। গরীব মানুষের নেই।

স্বাধীনতা দিবসের ভাষণ দিয়েছিলেন একটি অঙ্গরাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী-– যা সম্প্রচারিত হওয়ার কথা ছিল দূরদর্শনে এবং আকাশবাণীতে-– অন্য সমস্ত রাজ্যের মতোই। কেন্দ্রে সরকার বাহাদুরের পছন্দ হয়নি সে ভাষণ-– কারণ তার ভাষা তাঁদের রাজনীতির ধারণার পরিপন্থী। তাই সেই ভাষণ প্রচারিত হয়নি সে রাজ্যের দূরদর্শনে এবং আকাশবাণীতে। কারণ আমরা স্বাধীন দেশে বাস করছি। কারণ আমাদের সংবিধান আমাদের “বাকস্বাধীনতা” দিয়েছে-– স্বাধীন দেশে নিজের মতপ্রকাশের অধিকার দিয়েছে। ওঁর ভাষণে আমাদের সংবিধানে উল্লিখিত বৈচিত্রের মধ্যে ঐক্যের কথাটা গুরুত্ব পেয়েছে-– তাই তা নিষিদ্ধ। অমর্ত্য সেনের বক্তব্যে গরুর রাজনীতি সংক্রান্ত কিছু বক্তব্য ছিল-– তাই তা নিষিদ্ধ হয়েছে। ডাঃ কাফিল আহমেদ চাকরি থেকে সাসপেন্ড হয়েছেন। জে এন ইউ ক্যাম্পাসে ছাত্রছাত্রীদের দেশপ্রেমিক করে তোলার জন্য সেনাবাহিনীর কামান বসানো হয়েছে-– শেহলা রসিদের গবেষণাপত্র ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে আধার কার্ড নেই বলে। আমার দেশের পুলিশ আমাকে প্রায় রোজ মনে করিয়ে দিচ্ছে আমি সোশাল মিডিয়ায় যা যা লিখছি, তার ওপর নজর রাখা হচ্ছে, এবং প্রয়োজনে রাষ্ট্র হস্তক্ষেপ করবে। আমার আশেপাশে থেকে মিত্র বন্ধু আত্মীয় স্বজনকে যখন তখন রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে হাজতে পুরছে পুলিশ-– আদালতে বিনা শুনানিতে একের পর এক নতুন ডেট হয়ে যাচ্ছে, প্রমাণ ছাড়া ইউ এ পি এ লাগিয়ে দিচ্ছে। এবং এসবই হচ্ছে কারণ, জানবেন, আমরা স্বাধীন দেশে বাস করছি। আমরা বাস করছি বিশ্বের বৃহত্তম গণতন্ত্রের দেশে। অতএব স্বাধীনতা নিয়ে কোনও কথা হবে না বস! এসো এসো-– লেট’স সেলিব্রেট। নইলে–

About চার নম্বর প্ল্যাটফর্ম 4066 Articles
ইন্টারনেটের নতুন কাগজ

Be the first to comment

আপনার মতামত...